বিএমএসসি – র সৃষ্টির ইতিহাস

আজ থেকে প্রায় ২৯ বছর আগে তৎকালীন সমাজ সচেতন মারমাদের সাংস্কৃতিক কর্মী ও তুখোড় মারমা ছাত্র নেতারা বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রামে মারমাদের মধ্যে যোগাযোগ, ভাব-বিনিময়, ধ্যান-ধারণা, অনুভূতি আদান-প্রদানের জন্য নতুন চিন্তা-চেতনা, নতুন লক্ষ্য ও নতুন সংগঠনের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। যে সংগঠন মারমাদের ঘুণে ধরা সমাজ ব্যবস্থা পরিবর্তনে মারমা ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে সমাজ ও দিন বদলের এক বৈপ্লবিক পরিবর্তনের চেতনা ধারণ করবে। সে লক্ষ্যে ১৯৮৯ সালে ২৪শে অক্টোবর এক পড়ন্ত বিকেলে ঢাকায় বাংলাদেশের উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত সচেতন মারমা ছাত্র-ছাত্রীদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্টস কাউন্সিল নামে এক নতুন অরাজনৈতিক ও প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয়।

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এই সংগঠনটি শিক্ষাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আসছে। কেননা শিক্ষাই পারে ঘুণে ধরা মারমা সমাজকে পরিবর্তন করতে। শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে মারমা সমাজের বৈপ্লবিক পরিবর্তন, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অগ্রগতি সাধন করা এবং যুব সমাজের নৈতিক শিক্ষাকে পরিপুষ্ট করার মাধ্যম। যার উদ্দেশ্যে বিএমএসসি কর্মীরা প্রতি বছর গ্রীষ্মের ছুটিতে ফ্রি-কোচিং প্রোগ্রাম ব্যবস্থা করে থাকে।

হাঁটি হাঁটি পা পা করে আজ এই সংগঠন ২৫টি বছরে পর্দাপন করেছে। এই ২৫টি বছরে সফলতা যেমন আছে তেমনি ব্যর্থতাও আছে। তবে এই ২৫টি বছর সংগঠনকে যথেষ্ট পরিপুষ্ট দান করেছে। আমরা একবিংশ শতাব্দির এই অগ্রযাত্রায় পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর শিক্ষার অধিকার অর্জনের মিছিলে সকলের ঐকান্তিক সহযোগিতা কামনা করছি।